রাজবাড়ী জেলার দর্শনীয় স্থান

image_pdfimage_print
কল্যাণ দীঘি:
রাজবাড়ি শহর থেকে ছয় মাইল পশ্চিমে নবাবপুর ইউনিয়নে রাজধারপুর গ্রাম। রাজধারপুর গ্রামের পাশে কল্যাণ দীঘি। বিরাট আকারের এই দীঘি বর্তমানে সমতল বিরাট বিলে পরিনত হলেও দীঘির সীমানা নির্ধারন কষ্টকর হয় না। অনেকের মতে দীঘিটি ১৬ খাদা জমি নিয়ে ( ১৬ পাখিতে ১ খাদা এবং ১ পাখি= .২৫ শতাংশ এর অবস্থান ছিল। এত বড় দীঘি এ অঞ্চলে দৃষ্ট হয় না। প্রথমে রাজা সীতারামের খনন কাজ। এক সময়ে এ অঞ্চলে রাজা সীতারামের করতলগত হয়। রাজা সীতারাম তার রাজধানী মুহম্মদপুরে (মাগুরা) অনেক দীঘি খনন করেন। রাম সাগর, সুখ সাগর, কৃষ্ণ সাগর নামক দীঘি তার কীর্তি। কথিত আছে সীতারামের খানজাহান আলীর মত একদল বেলদার সৈন্য ছিল। সংখ্যায় ২০০। তারা যুদ্ধের সময় ছাড়া অন্য সময় জলাশয় খনন করে লোকের জলকষ্ট দূর করত। কথিত আছে সীতারাম প্রতিদিন নব খননকৃত জলাশয়ের জলে স্নান করতেন।বেলগাছিতে রাজা সীতারামের খননকৃত একটি পুকুর আছে। মতান্তরে কল্যাণ দীঘি খান জাহান আলীর কীর্তি। খানজাহান আলী ১৪৫৯ খ্রিস্টাব্দে যশোর, খুলনা জয় করে খলিফাতাবাদ রাজ্য প্রতিষ্ঠা করেন। খানজাহান আলী ধর্মপ্রচার ও জনহিতকর কাজের জন্য বহু দীঘি খনন করেন। বাগেরহাটের খানজাহান আলী দীঘি তার খননকৃত অন্যতম দীঘি। খানজাহান আলী পরে পীর হিসেবে ধর্ম প্রচারের উদ্দেশ্যে একদল ধর্ম প্রচারককে উত্তর পূর্বাঞ্চলে পাঠান। তার সময়ে এ দীঘি খননকৃত এ ধারনাও বিচিত্র নয়। খানজাহান আলী ও রাজা সীতারামের খনন কাজের কিচু পার্থক্য দেখা যায়। মুহ্ম্মদপুরে রাজা সীতারামের খননকৃত দীঘি সকল বাগেরহাটে খানজাহান আলীর খননকৃত দীঘি সকল থেকে আকার আয়তনে ছোট। কল্যাণ দীঘির আকার আয়তন অনেক বড় যা খানজাহান আলীর খননকৃত দীঘির মত। দীঘি খননের সময়কাল ধরলে দেখা যায় খানজাহান আলীর খননকৃত হলে তা হবে প্রায় ৬০০ শত বৎসর পূর্বে আর সীতারামের খননকৃত হলে হবে ৪০০ শত বছর পূর্বে। যে কোন দীঘি যত্নাভাবে বা অন্য কোন কারনে তা বসে যেতে পারে। কাজেই ৬০০ শত বা ৪০০ শত বছর বিবেচনায় রেখে খানজাহান বা সীতারামের খনন কিনা তা বলা যাবে না। তবে সুলতানি আমলে কল্যাণ দীঘির পাশ্ববর্তী অঞ্চলটি বর্ধিষ্ণু অঞ্চল হিসেবে পরিচিতি পায়। এ অঞ্চলের সেকআরা গ্রামে ষোড়শ শতকের প্রথম দিকে সাহ পাহলোয়ান ও সাহ সাদুল্লার মতো জবরদস্ত পীর আউলিয়ার আগমন ঘটে।জায়গাটি সুলতানি আমলেই মুসলিম প্রাধান্য লাভ করে যার কারনে পীর আউলিয়াদের আগমন ঘটে। ধর্মপ্রচারে উদ্দেশ্যে খানজাহান আলীর খলিফাতাবাদ রাজ্যে জনসাধারণের কল্যাণার্থে এ দীঘি খনন হতে পারে।সূত্র: রাজবাড়ি জেলার ইতিহাস ঐতিহ্য মু. মতিয়ার রহমান
গোয়ালন্দের দৌলতদিয়া ঘাট-
ব্রিটিশ আমলে গোয়ালন্দকে বলা হতো গেটওয়ে অব বেঙ্গল। লঞ্চঘাটটি দৌলতদিয়া ঘাট নামে পরিচিত। এখানে বাংলাদেশের দুটি বড় নদী পদ্মা ও যমুনার মিলন ঘটেছে। পদ্মার ইলিশের জন্যও জায়গাটি বিখ্যাত ছিল সে সময়।
শাহ পাহলেয়ানের মাজার:   ষোড়শ শতকের ধর্ম প্রচারের উদ্দ্যেশ্য সুদুর বাগদাদ থেকে জবরদস্ত পীর শাহ পাহলেয়ান আগমন করেন। বালিয়াকান্দি থানার চন্দনা নদীর তীরে সেকাড়ায় বাসস্থান নির্মান করেন। এ তাপস প্রবরের প্রভাবে ইসলাম প্রচার বৃদ্ধি পায়। তিনি পীর খান জাহান আলীর উত্তর সুরী ছিলেন। সেকাড়া গ্রামে তার কবর বিদ্যমান। শাহ পাহলেয়ান ফানাকি শায়েক স্তরের ছিলেন, তাই তার কবর পূর্ব পশ্চিম লম্বালম্বী  দিতে বলেছিলেন পীরের সম্মানে। কারন তার পীর সেকাড়া থেকে দক্ষিণে অবস্থান করছিলেন।
নলিয়া জোড় বাংলা মন্দিরঃ বালিয়াকান্দি থানার নলিয়া গ্রামে একটি জোড় বাংলা মন্দিরের ধ্বংসাবশেষ রয়েছে। এর গঠন বিচিত্র। এ মন্দিরটি ১৭০০ সালে তৈরী বলে পন্ডিতগণ মনে করেন।
মীর মশাররফ হোসেন স্মৃতিকেন্দ্র-
বিষাদসিন্ধুর রচয়িতা মীর মশাররফ হোসেনের সমাধি রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার নবাবপুর ইউনিয়নের পদমদী গ্রামে। সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় এখানে একটি স্মৃতিকেন্দ্র গড়ে তুলেছে। প্রায় দেড় হাজার গ্রন্থের একটি সমৃদ্ধ পাঠাগার আছে স্মৃতিকেন্দ্রে। আরো আছে দলিলপত্রের সংগ্রহশালা, ১০০ আসনের সভাকক্ষ এবং একটি বিশ্রামাগার। কেন্দ্রের প্রবেশমুখে মীর সাহেবের একটি আবক্ষ মূর্তিও আছে।

পাচুরিয়া ইউনিয়নের খোলাবাড়ী গ্রামে তৎকালীন জমিদার প্রয়াত ডিকে সাহার বাড়ী  ও মুকুন্দিয়া মঠ।

গোদার বাজার ঘাটঃ
রাজবাড়ি সদর উপজেলা পরিষদ হতে প্রায় ৩.৫ কিমি দূরে পদ্মা নদী সংলগ্ন গোদার বাজার ঘাটটি একটি ঐতিহ্যবাহী আমদানী রপ্তানি ঘাট। রাজবাড়ী সদর উপাজেলার নদী পথে যোগাযোগের একমাত্র আমদানী ঘাট। এই ঘাটের মাধ্যমেই নদী পথে মালামাল আমদানী-রফতানী হয়ে থাকে। প্রতি বৎসর আশ্বিণ মাসে বিশাল নৌকা বাহিচ হয়ে থাকে।  প্রতিদিন বিকালে দর্শনার্থীদের মিলন মেলায় পরিণত হয়।

 নীলকুঠিঃ ১৮৫৭ সালে সিপাহী বিদ্রোহের পর নীলকরদের অত্যাচার আরো বৃদ্ধি পায় এবং প্রজা সাধারণ অতিষ্ট হয়ে সংঘবদ্ধভাবে নীলকরদের বিরূদ্ধে রুখে দাড়ায়। শুরু হয় নীলবিদ্রোহ। রাজবাড়ীতে  নীলবিদ্রোহ সংঘটিত হয়। এ সময় বালিয়াকান্দি থানার সোনাপুরের হাশেম আলীর নেতৃত্বে শত শত চাষী নীলকর ও জমিদারদের বিরূদ্ধে নীল বিদ্রোহে অংশ নেয়। বহু স্থানে নীলকুঠি আক্রমণ করে ও কাচারী জ্বালিয়ে দেয়। এ অঞ্চলের বসন্তপুর, বহরপুর, সোনাপুর, বালিয়াকান্দি, নাড়ুয়া, মৃগী, মদাপুর, সংগ্রামপুর, পাংশার নীলচাষীরা বিদ্রোহী হয়ে ওঠে। ফলে ১৮৬০ সালে বৃটিশ সরকার নীল কমিশন বসান এবং নীল চাষ স্বেচ্ছাধীন ঘোষণা করেন। ধীরে ধীরে কৃত্রিম নীল উদ্ভাবিত হয় এবং প্রাকৃতিক নীল চাষ বন্ধ হয়ে যায়।
রথখোলা সানমঞ্চঃ রাজবাড়ী শহর থেকে দুই স্টেশন পশ্চিমে প্রাচীন হড়াই নদীর তীরে বর্তমান পদ্মার কাছাকাছি বেলগাছি একটি ঐতিহ্যবাহী স্থান। বেলগাছির অদূরে হাড়োয়ায় স্থাপিত হয়েছে কষ্টি পাথরের মদন মোহন জিউর। মদন মোহন এর মূর্তিটি পাল আমলের। বেলগাছিতে রাম জীবনের নামে গড়ে ওঠে আখড়া। রাম জীবনের স্মৃতি চিহ্ন হিসেবে সেখানে সানমঞ্চ ও দোলমঞ্চের ধ্বংসাবশেষ রয়েছে।
 জামাই পাগলের মাজারঃ রাজবাড়ী শহরের ৬ কিঃমিঃ দক্ষিণ-পূর্বে আহলাদিপুর মোড়ে জামাই পাগলের স্মৃতি চিহ্ন হিসেবে একটি শেড নির্মিত হয়। ১৯৬০ সালের দিকে জামাই পাগল নামে এক ব্যক্তিকে সেখানে নেংটি পরা অবস্থায় শেওড়া গাছের নীচে মজ্জুম অবস্থায় দেখা যেত। তাকে কেহ প্রশ্ন করলে তিনি একই প্রশ্নের পুনরাবৃত্তি করতেন। তার মৃত্যুর পর উক্ত স্থানে জামাই পাগলের মাজার নামে একটি মাজার গড়ে উঠেছে। লোকশ্রুতি আছে জামাই পাগল এক বোবা মেয়েকে পানিতে চেপে ধরে ছেড়ে দিলে সে কথা বলতে শুরু করে।
দাদ্শী মাজার শরীফঃ রাজবাড়ী শহর থেকে রেল লাইন ধরে পূর্বদিকে ১ কিঃমিঃ দূরে দাদ্শী খোদাই দরগা। ইসলাম প্রচারের উদ্দেশ্যে কামাল শাহ নামক এক আউলিয়া ষোড়শ শতকে এতদঞ্চলে আগমন করেন।। ১৮৯০ সালে গোয়ালন্দ ঘাট পর্যন্ত রাজবাড়ী রেল লাইন স্থাপনের সময় জঙ্গলের মধ্যে দরগাটির সন্ধান মিলে। সেই হতে দরগাটি এ অঞ্চলের মানুষ খোদাই দরগা নামে কামাল শাহ আউলিয়ার প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে আসছেন।
 সমাধিনগর মঠ ( অনাদি আশ্রম: বালিয়াকান্দি উপজেলার জঙ্গল ইউনিয়নে ১৯৪০ সালে স্বামী সমাধী প্রকাশরণ্য এ মঠটি নির্মাণ করেন যার উচ্চতা ৭০ ফুট (গম্বুজসহ), দৈর্ঘ্য প্রায় ৮০ ফুট এবং প্রস্থ ৫০ ফুট। এটি অনাদি আশ্রম বলে পরিচিত। স্বামীজী এ আশ্রমের মাধ্যমে ঐ এলাকার মানুষকে আলোর পথে অগ্রায়ণ করে গেছেন।

image_pdfimage_print

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*